বুধবার, ১লা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ১৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, রাত ৪:২৫

সাকিব কেন এত বড় ভুল করলেন

তামিম ইকবাল, মুশফিকুর রহিম, মুস্তাফিজুর রহমান- সবাই তারকা ক্রিকেটার। সবাই ম্যাচ উইনার। কিন্তু বাংলাদেশ ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় ‘বিজ্ঞাপন’ সাকিব আল হাসান। মাঠের দাপুটে পারফরম্যান্সের জন্য বাংলাদেশের ক্রিকেটের ‘মুখচ্ছবি’ বলা হয় তাকে। এক যুগ ধরে ব্যাট ও বলের ধারাবাহিক পারফরম্যান্সে সাকিব এখন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার। টাইগারদের দলপতি। অথচ সেই সাকিব এখন নিষিদ্ধ! জুয়াড়ির ম্যাচ পাতানোর প্রস্তাব পেয়েও গোপন করার দায়ভার স্বীকার করে সব ধরনের ক্রিকেটে বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার নিষিদ্ধ হয়েছেন এক বছর। আইসিসির এই নিষেধাজ্ঞা কোনোভাবেই মেনে নিতে পারছেন না দেশের ক্রিকেটপ্রেমীরা। কিন্তু বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার নিষেধাজ্ঞা মেনে প্রত্যাশা করেছেন রাজকীয়ভাবে ফেরার। সাকিব ফিরবেন আরও বিধ্বংসী মেজাজে, এমনটি জানেন সবাই। কারণ দৃঢ়চেতা চরিত্রের সাকিব বারবার ফিরেছেন দাপট দেখিয়েই। তার ফেরার অপেক্ষায় থাকা দেশ ও বিদেশের ক্রিকেটার থেকে শুরু করে ক্রিকেটপ্রেমী, সংগঠকরা কেউ বুঝে উঠতে পারছেন না, জুয়াড়ি দীপক আগারওয়ালের তিন-তিনবার দেওয়া ম্যাচ ফিক্সিংয়ের প্রস্তাব কেন গোপন রেখেছিলেন সাকিব, কেন জানাননি আইসিসির দুর্নীতি দমন ইউনিটকে (এসিইউ)। গোপন করার কারণ খুঁজে পাচ্ছেন না কেউই। গোপন রাখার বিষয়ে কিছুই বলেননি দেশের ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর সাকিব নিজেও। ২০০৭ সাল থেকে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলছেন সাকিব। ১২ বছরে অসাধারণ পারফরম্যান্স করে বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার হয়েছেন টেস্ট, ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে। বিশ্বকাপ ক্রিকেটে চোখধাঁধানো পারফরম্যান্স ছিল তার। এমন আকাশছোঁয়া পারফরমারকে ঘিরে ম্যাচ পাতানোর অভিযোগ উঠতে পারে, এমন সন্দেহের বিন্দুমাত্র অবকাশ ছিল না। ২০০৮, ২০১০ ও ২০১৩ সালেও ম্যাচ পাতানোর প্রস্তাব পেয়েছিলেন সাকিব আল হাসান। তখন বিষয়গুলো সঙ্গে সঙ্গেই জানিয়েছিলেন এসিইউকে। এবার ভুল করলেন কেন ৩২ বছর বয়সী অভিজ্ঞ সাকিব? ২০১৮ সালে মাত্র দুই মাসের ব্যবধানে তিনবার প্রস্তাব পান ম্যাচ পাতানোর। এর মধ্যে দুবার বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা-জিম্বাবুয়ের তিন জাতির টুর্নামেন্টে এবং একবার আইপিএলে। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে এক যুগের অভিজ্ঞতা যার, তিনি ম্যাচ পাতানো এবং এতে সহযোগিতা করা কতটা অন্যায় তা জানার পরও এড়িয়ে গেলেন কেন, এমন প্রশ্ন সবার। অথচ এ প্রসঙ্গে বিশ্বসেরা অলরাউন্ডারের আচরণ রহস্যময়! তামিম ইকবাল, আফিফ হোসেন ধ্রুব প্রস্তাব পাওয়ার পর জানিয়ে দেন এসিইউকে। কিন্তু জানাননি সাকিব। কেন জানাননি, এটাই এখন বড় এক রহস্য!